যৌন নিপীড়কের স্ত্রী'র "পোস্ট ও আমার উত্তর"

বুধবার, নভেম্বর ২১, ২০১৮ ২:৩০ PM | বিভাগ : প্রতিক্রিয়া


রোজিনা রহমান (পপি) একটি দৈনিক পত্রিকার কূটনৈতিক প্রতিবেদকের (রেজাউল করিম লোটাস) স্ত্রী।

আমি আলফা আরজু ও রোজিনা রহমানের স্বামী একসময় বাংলাদেশের একটি ইংরেজি দৈনিকে (The Daily Star) কাজ করতাম। সেই সময় তার স্বামী লোটাস আমাকে sexual harrassment করেছেন বলে আমি কয়েকদিন আগে একটি #MeToo ফেইসবুক পোস্ট দিই। সেখানে আমি আমার প্রাক্তন দুইজন সহকর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছিলাম।

*এর মধ্যে আমার প্রথম অভিযোগ যার বিরুদ্ধে ছিলো -তিনি (এনাম আহমেদ, Executive Editor Online) "সেই সময়ের প্রেক্ষাপটে যা হয়েছিলো তার জন্য appology চেয়েছেন। এবং, আমি তার এই সৎ সাহস ও সুস্থ বোধোদয়ের জন্য অভিভূত হয়েছি। সাথে আমি এও মনে করি  কেউ কারোর সাথে জেনে বা অজান্তে ভুল/অন্যায় করলে সেটা স্বীকার করে শুধরে চলার চেষ্টা করাটাই একজন মানবিক মানুষের কাজ।

আমি এনাম ভাইয়ের পাবলিক পোস্টে এনাম ভাইকে ধন্যবাদও দিয়েছি।

অন্য যে অভিযোগ আমি জনাব লোটাসের বিরুদ্ধে এনেছি তার জন্য লোটাস আমার চরিত্র হনন ও আমার ফেসবুক একাউন্ট হ্যাক থেকে শুরু করে নানাবিধ যন্ত্রনা শুরু করেছেন।

প্রথম দিন আমি নাম ছাড়াই পোস্ট দিয়েছিলাম কারণ লোটাস ও আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগে পড়াশুনা করেছি ও আমাদের অনেক কমন সিনিয়র জুনিয়র সাংবাদিক বন্ধু ও পরিচিতজনরা আছেন। তাদের সবাইকে আমি বিব্রত করতে চাই নি।

ফেসবুকে লোটাসের সাথে সখ্যতার কথা আমি বলেছি। দীর্ঘ আড়াই বছর বিরতির পর ২০১৫ সালে ফেসবুকে নতুন একাউন্ট খুললে লোটাস আমাকে ফ্রেণ্ড রিকোয়েস্ট পাঠায় এবং আমি তাকে একসেপ্ট করি।

আমি অভিযোগের প্রথম দিন থেকেই বলছি এবং তদন্ত কমিটিকেও বলেছি "আমাদের কমন বন্ধু ও পরিচিতজনদের" জন্য আমি সব সময় লোটাসের সেই "অসুস্থ যৌনাচার" ভুলে যাওয়ার প্রানান্ত চেষ্টা করেছি। ক্ষমা করে দেবারও চেষ্টা করেছি। তার অশোভন আচরণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য আমি আমার প্রিয় পত্রিকা ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছি।

তারপর লোটাসের স্ত্রী'র সন্দেহের তীর গুলো আমলে নিয়ে আমি এই পোস্ট লিখছি। তাতে করে লোটাস, তার স্ত্রী ও তার অন্য ফ্যান ফলোয়ার বন্ধুদের সহজ হবে আমার চরিত্র হনন করতে।

১. দুঃখিত, পপি আপা আপনার সন্দেহের প্রথম তীর ছুড়েছেন, আমি কেনো আপনার ও আমার উভয়ের পরিচিত বন্ধুদের বলিনি যাদের কাছে আপনি ফোন দিয়ে জানতে পেরেছেন "তাদের কারোর সাথে আমি লোটাসের এই ঘটনা শেয়ার করিনি।"

আমার উত্তর: আমি এই ঘটনার রাতেই আমার স্বামীর সাথে শেয়ার করে যে প্রত্যুত্তর পেয়েছিলাম তাতে আর সাহস পাই নি আপনার ও আমার কমন বন্ধুদেরকে এইটা বলতে। আর একজনকে বলেছিলাম যিনি এখন প্রয়াত। তাঁর নাম মাহবুবুল আলম। ইন্ডিপেন্ডেন্ট পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। আরও দুই একজন আছেন। তাদের মধ্যে যুগান্তর পত্রিকার একজন সাংবাদিক (শেখ মামুনুর রশীদ) ও আমার এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু যে এখন আমেরিকায় থাকে। তাদের কাউকে আপনার ও লোটাসের দরবারে হাজির করার কোনো ইচ্ছে আমার নেই।

(যদিও, প্রথম দিন সাংবাদিক মামুন আমার পোস্টে কমেন্ট দেয়ার পর থেকেই আপনার স্বামীর হয়ে বিভিন্ন জনের হুমকি ধামকি পাচ্ছে যাতে সে মুখ না খুলে)

আর ডেইলি ষ্টার সম্পাদকদের কেনো বলিনি জানতে চেয়েছেন। "আমি বলার জন্য মাহফুজ আনাম ভাই ও আশা আপা'র কাছে একবার যেয়ে অনেক কথা বলেছি আর কেঁদেছি দীর্ঘক্ষণ। কিন্তু, আপনার চরিত্রবান স্বামীর কথাটা তোলার সাহস হয় নি। কারণ, এটাও সত্য যে ওই সময়ে যতটুকু সাহস প্রয়োজন ছিলো সেটুকু সাহস পাই নি।

আর কারোর কাছে বলেছি কিনা মনে পড়লেও দুঃখিত তাদেরকে আমি আপনার স্বামী চরিত্রবান মহাপুরুষ প্রমানের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করতে পারছি না তাদের ব্যাক্তিগত সমস্যার জন্য।

আর একটা কথা। আপনি প্রশ্ন করেছেন, কেন আপনাকে বলিনি "এতোদিন পর এসে এই ঘটনা শুনে বিশ্বাস করেন নি, তখন কি আমাকে বিশ্বাস করতেন, পপি আপা?

২. আপনার স্বামীর সাথে আমি দারুন একটা "বস বস" সম্পর্ক কেনো রেখেছি? কেনো আমি "লাভ/WOW" এর emoji দিয়েছি তার পোস্ট গুলোতে। btw, I used to call all my Chief Reporters as Boss.

কারণ, বারবার করে বলা সেই একটা লাইন "আপনার যৌন নিপীড়ক স্বামীকে আমি সব সময় ক্ষমা করে দেয়ার চেষ্টা করেছি।"

তার অযাচিত "sexual assault" এর ঘটনা ভুলে যাওয়ার চেষ্টা করেছি। প্রাণ দিয়ে (আপনার যদি আমার মানসিক কাউন্সেলিং এর সেশন গুলোর রিপোর্ট লাগে, চেষ্টা করলে জোগাড় করতে পারবো যেখানে আপনার স্বামীর এই যৌনাচারের কথা কয়েকবার করে বলেছি।)

আপনি জানতে চেয়েছেন এখন, কিভাবে সাহস করলাম? তা নিয়েও আপনার সন্দেহ জেগেছে। জ্বি, আমি সাহস করেছি #metoo আন্দোলনের অন্য সব ঘটনা পড়ে ও তাদের সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনার সুবিচার নিশ্চিত হয়েছে দেখে।

আপনার স্বামীর মতো অথবা তার চেয়ে আরো বড় বড় মানুষগুলোর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠার পর তড়িৎ বিচার নিশ্চিত হয়েছে এবং আমি এতোদিনে যা বুঝেছি, ডেইলি ষ্টার ও মাহফুজ ভাই কর্মস্থলের এই সেক্সচুয়াল harrassment এর ঘটনার বিচার নিশ্চিত করবেন সেই বিশ্বাস থেকে।

৩. এর মধ্যে আমি যখন প্রথম নাম না দিয়ে পোস্ট দিয়েছিলাম তখন অন্য তিন জন নারী সাংবাদিক আপনার স্বামীর সম্পর্কে যা বলেছিলো সেগুলো সাথে আমার ঘটনার হুবুহু মিল পেয়েছিলাম এবং আমার মনে হয়েছে আপনার স্বামীর চরিত্র আসলেই এ রকম যিনি একজন "যৌন নিপীড়ক"। এর মধ্যে একজন আমাদের সাংবাদিকতা বিভাগের আপনাদের ব্যাচের চেয়ে ২০/২২ বছরের জুনিয়র।

এক নারী সাংবাদিক (Broadcast journalist, বর্তমানে প্রবাসী) ফোন করে বলেছে - "আপু, এই লোটাস লুইচ্চা - আমাদের ডিপার্টমেন্টের বড় ভাই ভেবে আমি কিছু দিন কথা বলেছি। উনি ফোন ও ম্যাসেঞ্জারে  অনেক বাজে যৌনতা সম্পর্কিত ম্যাসেজ পাঠাতো। একদিন নিষেধ করেছিলাম, তারপরও সে পাঠাতো। প্রায়ই ফোন দিয়ে তুমি খুব সুন্দর, তোমাকে আমার খুব পছন্দ টাইপ কথা বলতো। এর মধ্যে একদিন লোটাস আমাকে ফোন দিয়ে তার বাসায় দাওয়াত দিয়ে বলেছিলো, তোমার ভাবি বাসায় নাই বেড়াতে আসো। তারপর থেকে এই লম্পটের ফোন আর ধরতাম না। কিন্তু, ফেসবুকে পাবলিক পোস্টগুলোতে কমেন্ট করতাম। শুধু এক কমিউনিটি ও ডিপার্টমেন্টের সিনিয়র হিসেবে। তার সাথে একটা স্বাভাবিক সম্পর্ক রাখার চেষ্টা করেছি, কিন্তু ক্ষমা করতে পারিনি আপা।" সেই সাংবাদিকের নাম বললে আপনার স্বামীর অত্যাচারে ওর জীবন অতিষ্ঠ হয়ে যাবে। তাই, নামটা আর পাবলিকলি বললাম না।

* অন্য আরেকজন নারী সাংবাদিককেও সিএনজিতে আপনার স্বামী যৌন নিপীড়ন করেন, সে অভিযোগও আমি জানি। আর জনাব লোটাস আমাদের স্টারের অফিসেও অন্য নারী সহকর্মীদের অনেকের ইনবক্সে আজে বাজে ধরণের রোমান্টিক ও সেক্সুয়াল মেসেজ পাঠাতেন। সেগুলির কথা কেউ পাবলিকলি বলবে কিনা আমি জানি না।

আর বেশি কিছু বলার নেই। আপনি ও আপনার সন্তানদের জন্য শুভ কামনা। আমি জানি এটা আপনার মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে, আপনার কাছে যিনি ফেরেস্তার মতো, তিনি কিভাবে যৌন নিপীড়ক হন।

দুঃখিত পপি আপা, আপনার জন্য সমবেদনা। কিন্তু, এই সত্য মেনে নিয়ে আপনি যেভাবে পারেন ভালো থাকুন। এতে আপনার অথবা সন্তানদের কোনো দোষ নেই। কিন্তু, পরিবারে এ রকম "যৌন নিপীড়ক" থাকলে সামাজিকভাবে কিছুটা সাফার করতে হয়।

ভালো থাকবেন।

If you need more to know please email me at alpha.arzu@gmail.com & Thanks that you & Md Lotus stopped repeatedly calling me. I'm disgusted whoever gave you my overseas number. Sorry guys for tagging some of you to reach Popy Apa.


  • ৫৩৬ বার পড়া হয়েছে

পূর্ববর্তী লেখা পরবর্তী লেখা

বিঃদ্রঃ নারী'তে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার বিষয়বস্তু, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও মন্তব্যসমুহ সম্পূর্ণ লেখকের নিজস্ব। প্রকাশিত সকল লেখার বিষয়বস্তু ও মতামত নারী'র সম্পাদকীয় নীতির সাথে সম্পুর্নভাবে মিলে যাবে এমন নয়। লেখকের কোনো লেখার বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের যথার্থতার আইনগত বা অন্যকোনো দায় নারী কর্তৃপক্ষ বহন করতে বাধ্য নয়। নারীতে প্রকাশিত কোনো লেখা বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রকাশ কপিরাইট আইনের লংঘন বলে গণ্য হবে।


মন্তব্য টি

লেখক পরিচিতি

আলফা আরজু

সাংবাদিক

ফেসবুকে আমরা