ভ্যাজাইনা, মেচতা, এক স্তন এবং অন্যান্য

বুধবার, জুন ৩, ২০২০ ৪:২০ AM | বিভাগ : আলোচিত


আমি প্রায় সাড়ে ৪ মাস পর ১৩/১৪ দিন আগে এই আইডি খোলার মধ্য দিয়ে ফেসবুক জগতে প্রবেশ করেছি। গত আইডি রিপোর্টের ফলে ডিজেবল হয়ে গেছিলো। তখন জীবন নিয়ে এতো ব্যস্ত ছিলাম যে আইডি উইডি ফিরায়ে আনারও প্রয়োজনবোধ করি নাই। এই যে আমার ফেসবুকহীন সাড়ে ৪ মাস যে কী দারুণ ছিলো, সেইটা এখন তিল তিল পরিমাণে টের পাইতেছি! জীবন কতো বিষাক্ত, মানুষ কতো বিশ্রী, দুনিয়াডা কতো দুর্গন্ধময় সেইটা উপলব্ধির একটা দারুণ জায়গা ফেসবুক। এইখানে আসলে বারবার আমার উইলিয়াম গডউইনের "থিংকস এ্যাজ দে আর" এর কথা মনে পড়ে যায়।

যাই হোক আজ দুপুরের কথা বলি। খাওয়া-দাওয়া করে মাত্র ফোন হাতে নিয়ে ফেসবুকের নিউজফিড ভ্রমণ শুরু করছি। এর মধ্যেই চৈতী আহমেদের এক পোস্ট সামনে আইসা পড়লো। দেখলাম কোনো ব্যক্তির পোস্টের কমেন্ট উনি উনার ফেসবুক প্রোফাইলের কাভার ছবি হিসেবে আপলোড দিয়েছেন। এই কমেন্ট দুইটা পড়ার পর আমি স্পিসলেস হয়া গেছি! গত ৪/৫ মাসেও এতো বিশ্রী অনুভূতি হয় নাই আমার। আমি এ সম্পর্কে কিছু বলা কিংবা লেখা থেকে বিরত থাকতে পারলাম না যদিও কয়েকবার ভাবছিলাম - লেট ইট বি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আমার সুপার ইগোর কাছে আইডি হাইরা গেছে। এরপর লেখা শুরু-

কয়েকটা পয়েন্ট খেয়াল করেন-

১. এক ভদ্রলোক ( জোবায়েন সন্ধি ) এক মহিলারে যেসব বিশেষণ দিয়ে বিশেষায়িত করতেছেন - মেসতাওয়ালা শরীর, সেকেন্ড হ্যান্ড, বিয়ানো বেডি।

২. এক ভদ্রমহিলার ( অনুসূয়া যূথিকা ) ব্যবহৃত বিশেষণসমূহ - ক্যান্সার সার্ভাইভার, এক মাঈ কাটা পড়া নিবেদিতপ্রাণ বিখাউজ সিফিলিস আক্রান্ত মেচতাওয়ালী চাইর রাত ফেরতা অভিজ্ঞতা সম্পন্ন প্রেমিকা।

প্রথমত, নারী-পুরুষ-ইন্টারসেক্স নির্বিশেষে কোনো মানুষকে কি তার চেহারা নিয়ে উপরিউক্ত বিশেষণসমূহে বিশেষিত করা যায়? করা অবশ্য যায়। আপনি করলে আপনারে ঠেকানোর আমি কে? যেমন অ্যামেরিকায় আফ্রিক্যান-অ্যামিরিকানদের "ব্লাক ডগ" কয়া হোয়াইটরা ডাকাডাকি করলে কিংবা ব্লাকদের বুটের নিচে পাড়ায়ে মাইরা ফললে আমি তাদের এইসব কার্যকালাপে বাধা দেওনের কেউ বা কিচ্ছু না। আপনি নির্দ্ধিধায় যা যা খুশি কইতেই পারেন, মানবাধিকার সনদ (১৯৪৯) এর ১৯ নং অনুচ্ছেদ অনুযায়ী আমি আপনার মুখের উপর পর্দা টানানোর কেউ না। কিন্তু আমি খুব ভাবলেশহীন মুখ নিয়া কইতে পারি - কে খাটো, কে লম্বা, কে বেশি সাদা, কে কম সাদা, কে কালো, কে খয়েরি, কার ওজন বেশি, কার ওজন কম, কার মুখে মেসতা আছে, কার মুখে পিম্পলসের দাগ ১২ মাস থাকে, কার চুল কম, কার এক স্তন নাই, কার স্তন ছোট, কার বড়, কার নিতম্ব অতিরিক্ত বড়, কার অতিরিক্ত ছোটো এই সকল শারীরিক বৈশিষ্ট্য ছাড়া মানুষকে ডিফাইন করার মতো তার অতি সহজলভ্য নাম আছে।

দ্বিতীয়ত, সেকেন্ড হ্যান্ড, বিয়ানো। এইরকম সেক্সিয়েস্ট ওয়ার্ড দুনিয়ায় কম আছে। এই ওয়ার্ড দুইটা দেইখা আমার নিজেরই খুব খুব দুঃখ লাগছে কারণ আমার অতীত এবং বর্তমান প্রেমিক কিংবা নাগরেরা বেশিরভাগই সেকেন্ড হ্যান্ড। আমি জানি না জোবায়েন সন্ধি নামক ভদ্রলোক চিরকুমার নাকি এখনো ফার্স্ট হ্যান্ড রয়া গেছে। আমি জানি না উনি এইটা শুধুমাত্র নারীবাচক শব্দ হিসেবে ব্যবহার করছে কি না! আমি ম্যালা ভালা। সুতরাং, 'আমি সেকেন্ড হ্যান্ড' কে কমন জেন্ডার ধইরা নিয়া ভাবতে বসছি। তবে আমার কেমন যেনো মনে হইতেছে, অন্যের ব্যবহৃত পুরান জামা বা মোজা নিজে পড়ছি পড়ছি লাগতেছে। একবার বিয়া হয়ে গেলে নারীরা সেকেন্ড হ্যান্ড মানে পুরুষেরাও সেকেন্ড হ্যান্ড। এই বেলা মনে হইতেছে- আমার প্রাক্তন গার্লফ্রেন্ড বিবাহিত, সদ্য গত হয়ে যাওয়া প্রেমিক এক না তিনবার বিবাহিত, বর্তমানে একজন আছে (প্রেমিক কিনা জানি না) সেও বিবাহিত ব্লা ব্লা... এইবার আমার বিষয়ডা বুইঝা লন। এই জোবায়েন সন্ধির মতানুযায়ী, আমার জীবনডাই গেছে সেকেন্ডহ্যান্ড জিনিসে আসক্ত হইতে হইতে!

অ্যাম ফিলিং স্যাড ফর মি। একটু একটু আইডেন্টিটি ক্রাইসিস আর সেক্সুয়াল জেলাসিতে ভুগতেছি ফার্স্ট হ্যান্ড প্রেমিক-প্রেমিকা না পাওয়ার দুঃখে।

তৃতীয়ত কোনো নারীকে দুনিয়ায় অন্য সমস্ত রোগ রাইখা 'সিফিলিস' নামক সেক্সুয়াল ডিসেসে আক্রান্ত বইলা সম্বোধন করাটা কতোটা সেক্সিয়েস্ট এইটা ভাবতে কষ্ট হয় আমার। এর অর্থ এই নারী নির্বিচারে শুইয়া বেড়ান। বিষয়টা কম পীড়াদায়ক না! নারীর পরিচয় দিতে গেলে ব্যবহৃত হয় - তার ভ্যাজাইনায় কয়টা পুরুষাঙ্গের আনাগোনা হইছে। বহু পুরুষাঙ্গ যেহেতু সেখানে প্রবেশ করে সুতরাং কোন এক বা একাধিকটা থাইকা ব্যক্টেরিয়ার সংক্রমণের ফলে সিফিলিস হইছে এবং তারে 'বারোভাতারি' না বইলা একটু শিক্ষিত পরিমার্জিত ভাষায় এই ওয়াক্তে "বিখাউজ সিফিলিস আক্রান্ত চাইর রাত ফেরতা অভিজ্ঞতাসম্পন্ন প্রেমিকা" কওন হইলো। কিন্তু এইক্ষেত্রে আমি 'ক্যান্সার সার্ভাইভার' কওয়া নিয়ে সমালোচনা করতেছি না, কারণ ক্যান্সারের সংগে ফাইট কইরা ফেরত আইসা দিন-দুনিয়ার সংগে গা ভাসায়ে স্রোতের টানে চলে যাওয়া চিরসবুজ, শক্তিশালী প্রাণগুলির জন্য সবসময় নিদারুণ ভালোবাসা আমার। সুতরাং, অনুসূয়া যূথিকার ব্যবহৃত এই বিশেষণখানা পজেটিভ বটেই!

শেষকথায়, ভাবতেই গা শিউরে উঠে নারীর মানবিক, অমানবিক, শিল্প-সাহিত্য, আবিষ্কার, দান-খয়রাত, বিশ্রি কাজ, চুরি, ঘুষ, শিশু পাচার, মানব পাচার, খুন, জালিয়াতি, দুর্নীতিসমেত সকল সুকর্ম, কুকর্মের কোনো মূল্য নাই। ওগুলা দিয়ে নারীকে ডিফাইন করা যায় না, বিশেষিত করা যায় না। নারীকে বর্ণনা করতে হলে দরকার হয় - তার ভ্যাজাইনা কয়টা পুরুষাঙ্গ গ্রহণ করছে কিংবা তার মুখে মেচতা আছে কিনা কিংবা তার স্তন একটা নাকি দুইটাই আছে!

এতোকিছুর পরও জানতে ইচ্ছা হইলো - চৈতী আহমেদকে বিশেষণে বিশেষায়িত করার জন্য তার ভ্যাজাইনা আর শরীর বিষয়ক বিররণ ছাড়া অন্য করা কোনো কাজের (সু বা কুকর্ম) বিবরণ আপনাদের জানা নেই?


  • ৩৪৪ বার পড়া হয়েছে

পূর্ববর্তী লেখা পরবর্তী লেখা

বিঃদ্রঃ নারী'তে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার বিষয়বস্তু, ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও মন্তব্যসমুহ সম্পূর্ণ লেখকের নিজস্ব। প্রকাশিত সকল লেখার বিষয়বস্তু ও মতামত নারী'র সম্পাদকীয় নীতির সাথে সম্পুর্নভাবে মিলে যাবে এমন নয়। লেখকের কোনো লেখার বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের যথার্থতার আইনগত বা অন্যকোনো দায় নারী কর্তৃপক্ষ বহন করতে বাধ্য নয়। নারীতে প্রকাশিত কোনো লেখা বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রকাশ কপিরাইট আইনের লংঘন বলে গণ্য হবে।


মন্তব্য টি

লেখক পরিচিতি

ফাহমিদা জামান ফ্লোরা

শিক্ষার্থী (ডিপার্টমেন্ট অফ ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়) এবং নারীবাদী লেখক।